1. admin@dwiptv.com : dwiptv.com :
  2. dwiptvnews2121@gmail.com : sub editor : sub editor
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৪০ পূর্বাহ্ন

রাঙ্গাবালীতে চারটি ধানকাটার মেশিন বিতরণ

এম এ ইউসুফ আলী, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :
  • আপডেট: সোমবার, ১০ মে, ২০২১
রাঙ্গাবালীতে চারটি ধানকাটার মেশিন বিতরণ
রাঙ্গাবালীতে চারটি ধানকাটার মেশিন বিতরণ

রাঙ্গাবালীতে ৭০% ভর্তুকিতে ধানকাটার মেশিন, খুশি কৃষকরা। পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় ধানকাটার অত্যাধুনিক কম্বাইন হার্ভেস্টার মেশিন বিতরণ করেছে কৃষি বিভাগ। ৭০ ভাগ ভর্তুকিতে এসব মেশিন বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।এ উপজেলায় পাঁচটি কম্বাইন হার্ভেস্টার বরাদ্দের আজকেরটা সহ চারটি বিতরণ করা হয়েছে।তার মধ্যে রাঙ্গাবালী একটি,ছোটবাইশদিয়া আজসহ দুইটি,বড়বাইশদিয়া একটি করে দেয়া হয়।আর একটি মেশিন প্রক্রিয়া দিন আছে।

 

জানা গেছে, ইতোমধ্যে নতুন তিনটি মেশিনে ধানকাটা শুরু করেছেন কৃষকরা। আন্তর্জাতিক মানের অত্যাধুনিক এ মেশিন পেয়ে খুশি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিসহ এলাকার কৃষকরা। এতে কম সময়ে ধানাকাটা যাবে। মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন এ উপজেলার কৃষি উন্ননে এ মেশিন কৃষকদের মাঝে নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছে বলেও দাবি করছেন সংশ্লিষ্টরা।
উপজেলা কৃষি বিভাগের তথ্যানুযায়ী, দেশের কৃষিখাত এখনো মানুষ, পশুশক্তি ও সনাতন খামার যন্ত্রাংশের ওপর নির্ভশীল।

 

গত তিন দশকে জমি চাষ ও সেচব্যবস্থা যান্ত্রিকীকরণের কারণে শস্যের পরিচর্যা শতকরা ১৯৩ ভাগে উন্নীত হয়েছে। শস্যের নিবিড়তা বা পরিচর্যা বাড়ার কারণে দুই ফসলের মধ্যবর্তী সময় অর্থাৎ এক ফসল কাটা ও অন্য ফসলের জন্য জমি তৈরি করে ফসল লাগানোর সময় কমেছে। কিন্তু ধানকাটা নিয়ে শ্রমিক সঙ্কট লেগেই আছে।

সূত্র বলছে, ধানটাকা দেশের কৃষির ক্ষেত্রে প্রধান সমস্যা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। ধানকাটতে কৃষককে অতিরিক্ত টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। এতে উৎপাদন খরচ বেড়ে যাচ্ছে। ফলে কৃষক কাঙ্ক্ষিত মুনাফা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কম্বাইন হারভেস্টার যন্ত্রের সফল ব্যবহারের মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উপজেলার বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের সামচান এলাকার তসলিম মুন্সী বলেন, তিন সন্তান নিয়ে পাঁচ সদস্যর পরিবার। শহর থেকে হার্ভেস্টার ভাড়া এনে তা দিয়ে যা আয় হতো তা দিয়ে সংসার চলতো। অনেক স্বপ্ন ছিল এমন মেশিন কেনার। কিন্তু সামর্থ্য ছিল না। সরকার আমার সেই স্বপ্ন পুরন করেছে। ৭০ ভাগ ভর্তুকিতে একটা মেটাল হার্ভেস্টার পেয়েছি। এজন্য কৃষি অফিস ও প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

আজ নতুন মেশিন পেয়ে ছোট বাইশদিয়া ইউনিয়নের কাউখালী এলাকার মোঃসোহাগ মিয়া বলেন, আমি কৃষক। আনেক কষ্ট করে অন্যের জমি চাষাবাদ করি। সেখান থেকে যা পাই তা দিয়েই আমার সংসার চলে। ছেলে সন্তান খেয়ে পরে আছি। সরকার আমাকে একটি মেশিন দিয়েছে। যার দাম ৩১ লাখ টাকা। অনেক আগে থেকেই আমার আশা এমন একটা মেশিন কিনবো। সামর্থ্য ছিল না। শেষ পর্যন্ত কৃষি অফিসের মাধ্যমে আমার দীর্ঘ দিনের আশা পুরণ হয়েছে। মাত্র ১১ লাখ টাকায় আমি এই মেশিন পেয়েছি। আমি অনেক লাভবান হতে পারবো, ইনশাআল্লাহ।

আজ রোববার সকালে আধুনিক প্রযুক্তির এই ধানকাটা মেশিন বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন রাঙ্গাবালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: মনিরুল ইসলাম, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের অনাধী কুমার বাহাদুর।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: মনিরুল ইসলাম বলেন, রাঙ্গাবালীতে ৭০ ভাগ ভর্তুকিতে পাঁচটি কম্বাইন হার্ভেস্টার বিতরণ করা হবে। এর আগে তিনটি আজকেরটা সহ চারটি মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। বাকি একটি মেশিন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি আরো বলেন, মেশিন পেয়ে কৃষক অনেক খুশি। রাঙ্গাবালীতে এই প্রথম এমন মেশিন দিয়ে ধানকাটা হচ্ছে। আর এর মাধ্যমে আমাদের যে কৃষি শ্রমিক সঙ্কট রয়েছে, তা সামাল দিতে পারবো। আমি আশা করি, এভাবেই আমাদের কৃষি এগিয়ে যাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আমাদের এন্ড্রয়েড এপস আপনার মোবাইলে ইন্সটল করুন।

Developer By Zorex Zira