1. admin@dwiptv.com : dwiptv.com :
  2. dwiptvnews2121@gmail.com : sub editor : sub editor
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন

পরিবেশ বিভাগ নিশ্চুপ; গন্ধ ধোঁয়ায় জনজীবন অতিষ্ঠ, যশোর জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট: সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১
পরিবেশ বিভাগ নিশ্চুপ; গন্ধ ধোঁয়ায় জনজীবন অতিষ্ঠ
পরিবেশ বিভাগ নিশ্চুপ; গন্ধ ধোঁয়ায় জনজীবন অতিষ্ঠ
যশোর-খুলনা ব‍্যস্ততম সড়ক ঘেঁষে যশোরের প্রেমবাগে মরণ ফাদে গড়ে উঠেছে ৫ টি চুন পুড়ানো ভ‍্যাটি। জনস্বাস্থ‍্যের মারাত্নক ক্ষতিকর বিকট গন্ধ আর ধোঁয়ায় বহু মানুষ শ্বাসকষ্ঠসহ নানা দুরারোগ‍্য অসুখে ভুগছেন। জনাকীর্ন স্থানে বে-আইনীভাবে গন্ধ ও ধোঁয়ায় শিশু এবং বৃদ্ধরা আক্রান্ত হন বেশি। ধোঁয়ার চাদরে ঢেকে যায় পুরো এলাকা। ফলে যানবাহনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার জন্ম হতে পারে।
এর আগে বেশ কয়েকটি দুর্ঘটনার শিকারে জীবন চলে গেছে ঐ এলাকায়। এ ব‍্যাপারে যশোর পরিবেশ বিভাগে ঐ এলাকার ভূক্তভোগীরা প্রতিকার চেয়ে লিখিত আবেদন করেছিলেন।দুর্ভাগ‍্য, রহস‍্যজনক কারণে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ পিনপতন নীরবতা পালন করেছেন যার কারণ অজ্ঞাত।শঙ্ক শামুখের পাহাড় সমান স্তুপ। তার গলা পচা বর্জ‍্যের বিশ্রী কটু গন্ধে দম বন্ধ করে নাক মুখ চেপে ঐ এলাকা অতিক্রম করতে হয়।তাছাড়া বর্ষা মৌসুম আসলে পানি জমে থাকা শঙ্ক শামাখে এডিস ডেঙ্গু মশা উৎপাদন হচ্ছে। প্রেমবাগ ইউনিয়নের প্রধান সড়কেই ৫ টি চুন ভাটির ৫০ ফুট দুরত্বে রয়েছে বসত বাড়ি।
প্রায় ২০০ গজের মাথায় দক্ষিণে ইউনিয়ন পরিষদ ভবন,উত্তর -পূর্বে সরকারি প্রাথমিক বিদ‍্যালয় ও মাধ‍্যমিক বিদ‍্যালয়,কিন্ডার গার্ডেন স্কুল,মার্কেট,মসজিদ,  ও বাসষ্টান্ড। বর্তমানে ঐ এলাকায় প্রায় শতাধিক মানুষ শ্বাসকষ্ঠসহ নানা রোগে ভুগছেন।
পরিবেশবিদরা বলেছেন,কতিপয় স্বার্থান্ধ ব‍্যক্তির কারণে সিংহভাগ মানুষ ধ্বংস হতে দেওয়া যাবে না। মেডিসিন ও বিশেষজ্ঞরা বলেছেন,শঙ্ক শামাক ঝিনুকে থাকে হাইভ্রো নামক ক‍্যামিক‍্যাল যা পুড়ালে ক্ষার হতে হাইড্রোজেন ও ক‍্যালশিয়ামে পরিণত হয়।নাইট্র অর্থাৎ পানি মিশালে তাৎক্ষণিক হাজারগুন ওই চুন হাইড্রোজেন তথা উগ্র তাপে পরিণত করে। আর তার বিষাক্ত ধোঁয়া ফুসফুস সহ বুকের স্পর্শ কাতর অঙ্গগুলোতে আক্রান্ত করে। ধোঁয়া ১৫০ ফুট চিমনি দ্বারা শুণ‍্যে তুলে দিতে হবে।
ভাটি ভাটা আর গন্ধ‍্য বর্জ‍্য জনাকীর্ণ স্থানে নয় ফাঁকা মাঠে করা যাবে। কারো ব‍্যাক্তি স্বার্থ হাসিল করতে বসতি এবং প্রতিষ্ঠান,বিদ‍্যাপিঠ তথা জনসম স্থানে বর্জ‍্য গন্ধ বিষাক্ত ধোঁয়া  করে জনস্বাস্থ‍্যের ক্ষতি করার অধিকার কারোও নেই। যা প্রচলিত আইনে দন্ডনীয় অপরাধ। এগুলো বলিষ্ঠ হাতে দমন করে পল্লীর মনোরম পরিবেশ অক্ষুন্ন রেখে প্রান্তিক মানুষদের রক্ষা করা সময়ের দাবি। নচেৎ এডিস ডেঙ্গুর ন‍্যায় বিভিন্ন মহামারী নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। আশু ব‍্যবস্থা গ্রহনে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা রেছেন সচেতন সমাজ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আমাদের এন্ড্রয়েড এপস আপনার মোবাইলে ইন্সটল করুন।

Developer By Zorex Zira