1. admin@dwiptv.com : dwiptv.com :
  2. dwiptvnews2121@gmail.com : sub editor : sub editor
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন

কুমিল্লায় মা-বাবার কবরের পাশে মোসারাত জাহান মুনিয়ার দাফন : মরদেহ জন্মভিটায় নেয়া হয়নি-

মুন্নি আক্তার, স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা :
  • আপডেট: মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১
কুমিল্লায় মা-বাবার কবরের পাশে মোসারাত জাহান মুনিয়ার দাফন : মরদেহ জন্মভিটায় নেয়া হয়নি-
কুমিল্লায় মা-বাবার কবরের পাশে মোসারাত জাহান মুনিয়ার দাফন : মরদেহ জন্মভিটায় নেয়া হয়নি-

রাজধানীর গুলশানের বিলাসবহুল ভাড়া বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধারকৃত কুমিল্লার তরুনী মোসারাত জাহান মুনিয়ার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বিকেলে ঢাকা থেকে মরদেহ কুমিল্লায় এসে পৌছানোর পর মরদেহ নিজ বাড়িতে না নিয়ে সরাসরি তাকে নগরীর টমছমব্রিজের কবরস্থানে নেওয়া হয়। সেখানে জানাজা শেষে মা-বাবার কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়।

 

 

রাজধানীর গুলশানের বিলাসবহুল ভাড়া বাড়িতে মোসারাত জাহান মুনিয়ার ঝুলন্ত মরদেহ পাওয়া যায়। আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরকে দায়ী করে সোমবার রাতে মামলা দায়ের করেছেন ঐ তরুণীর বড় বোন নুসরাত জাহান। সায়েম সোবহান আনভীর বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের ছেলে।

 

 

মোসারাত জাহান মুনিয়া (২১) কুমিল্লা নগরীর উজির দিঘীর দক্ষিণ পাড়ের সেতারা সদনের মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমানের মেয়ে।নিহত মুনিয়া মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

 

 

মামলার বরাতে জানা যায়, মুনিয়ার সঙ্গে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের সম্পর্ক দুই বছরের। আনভীর এক বছর মুনিয়াকে বনানীর ফ্লাটে রাখেন। পরে আনভীরের সঙ্গে মনোমালিন্য হলে মুনিয়া কুমিল্লায় চলে যান। তবে মার্চ মাসে ঢাকায় এসে গুলশানের নতুন ফ্লাটে থাকা শুরু করেন।’ আনভীর গুলশানের ওই ফ্ল্যাটে যাতায়াত করতেন। ‘চুক্তিপত্র অনুযায়ী ওই ফ্লাটের মাসিকভাড়া ১ লাখ টাকা। এবং অগ্রিম দেয়া হয়েছে দুই লাখ টাকা। এরই মধ্যে দুই মাসের ভাড়া পরিশোধ করা হয়েছে।’

 

 

জানা যায়, ‘২৩ এপ্রিল একটি ইফতার পার্টি হয় ওই ভাড়া বাসায়। ওই পার্টির ছবি ফেসবুকে আপলোড করা হলে মেয়েটির সঙ্গে আনভীরের মনোমালিন্য হয়। পরে মেয়েটি তার বোনকে ফোন করে জানান, যে কোনো মুহূর্তে তার যে কোনো ঘটনা ঘটতে পারে।’এই ফোনের পর কুমিল্লায় থেকে সোমবার বিকেলে ঢাকায় আসেন ওই তরুণীর বোন। তবে গুলশানের ফ্লাটটির দরজা ভেতর থেকে বন্ধ পান তিনি। পরে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে শোবার ঘরে তরুণী ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান।

 

 

আত্মহত্যার পূর্বে কুমিল্লার মেয়ে মুনিয়ার সাথে প্রেমিক বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকের ছেলে সায়েম সোবহান আনভীরের ফোনে ঝগড়া হয়েছিল বলে একটি সূত্র জানায়। ফোনালাপের একটি অডিও রেকর্ডও প্রকাশ হয়েছে। ফোনালাপে মুনিয়াকে কান্না করতেও শোনা গেছে।

 

 

এছাড়া ১৫ মার্চ মুনিয়া ফেসবুক চ্যাটে লিখেছিল- ‘‘ কি করলাম আমি, কেন রাগ করছো, বলো প্লিজ, এই কি তোমার প্রেম, আমার সাথেই, আমি আসবো এখন তোমার বাসায়, কিছু বলো, কি দোষ আমার বলবা তো । এরপর সায়েম সোবহান তাদের দুইজনের কিছু ছবি পাঠিয়ে লিখছে- এইগুলা কি ’’।

 

 

গুলশান জোনের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী সাংবাদিকদের জানান, সোমবার সন্ধ্যার দিকে গুলশান ২ নম্বরের ১২০ নম্বর সড়কের ফ্ল্যাট থেকে ওই তরুণীর ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ‘ঘটনাস্থল থেকে সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। ফুটেজ বিশ্লেষণ করার মাধ্যমে মামলার তদন্তে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি আসবে। আইন সবার জন্য সমান। আইনের অবমাননা কারী অবশ্য দেশের প্রচলিত আইনে ‍শাস্তি পাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আমাদের এন্ড্রয়েড এপস আপনার মোবাইলে ইন্সটল করুন।

Developer By Zorex Zira