1. admin@dwiptv.com : dwiptv.com :
  2. dwiptvnews2121@gmail.com : sub editor : sub editor
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৯:৫৬ পূর্বাহ্ন

মুন্সীগঞ্জে টঙ্গীবাড়ী‌তে ড্রেনের কাজ বন্ধ, দুর্গন্ধে এলাকাবাসীর ভোগান্তি

মোঃ লিটন মাহমুদ, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি :
  • আপডেট: বৃহস্পতিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২২
মুন্সীগঞ্জ‌ে  টঙ্গীবাড়ী‌তে ড্রেনের কাজ বন্ধ, দুর্গন্ধে এলাকাবাসীর ভোগান্তি
মুন্সীগঞ্জ‌ে  টঙ্গীবাড়ী‌তে ড্রেনের কাজ বন্ধ, দুর্গন্ধে এলাকাবাসীর ভোগান্তি
টঙ্গীবাড়িতে ড্রেনের কাজ বন্ধ থাকায় ময়লা আবর্জনায় দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়েছে, এতে ভোগান্তিতে পড়েছে এলাকাবাসী। গতকাল সোমবার উপজেলার বালিগাঁও-কলমা সড়কে গিয়ে দেখা যায়, বাজারের পানি অপসারণের জন্য ১হাজার মিটার দৈর্ঘ্য একটি ড্রেনের কাজ চলছে। যেখানে প্রায় ৯শ মিটার কাজ শেষ হলেও বাকি স্থানে ময়লা আবর্জনায় দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়েছে।
যেটা সাধারণ মানুষের জনজীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলছে। গত বছরে ড্রেনের কাজ শুরু হলেও সেটি এখনো অসমাপ্ত ভাবে পরে রয়েছে। এ ড্রেনের পানি পচে দুর্গন্ধ হয়ে মারাত্মকভাবে পরিবেশ দুষণ ঘটছে। দুর্গন্ধযুক্ত পানিতে বিস্তার ঘটছে মশা-মাছিসহ নানা ধরনের রোগ জীবাণুর। ফলে চর্মরোগসহ নানা ধরনের পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। একলাবাসী জানান, রাস্তার পাশে এমন ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধে রাস্তা দিয়ে হেটে চলা মুশকিল হয়ে পড়েছে। এখানে চায়ের দোকান, মুদি দোকানসহ বিভিন্ন ধরনের দোকানপাট রয়েছে যেখানে মানুষকে দাঁড়িয়ে থেকে কেনাকাটা করতে হয়। কিন্তু এই দুর্গন্ধের কারনে মানুষ দাঁড়িয়ে থাকতে পারেনা। একটু বৃষ্টি হলে তো ড্রেনের ময়লা পানিতে সমস্ত রাস্তা একাকার হয়ে যায়। ড্রেনের সামনে চায়ের দোকানি মনির হোসেন বলেন, ড্রেনের কাজ বন্ধ থাকায় ময়লা আবর্জনার গন্ধে দোকানে বসতে পারিনা। পেটের দায়ে দোকান খুলে বসে থাকতে হয়। একটু বৃষ্টি হলে ময়লায় একাকার হয়ে যায়। হঠাৎ বাতাস আসলে যেনো সব দুর্গন্ধ গুলো পেটের ভিতরে ঢুকে গেল। কবে এই যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পাবো জানিনা। ঠিকাদার মিজান বলেন, দেয়াল ভেঙে না দেয়ার কারণে আমি ড্রেনের কাজ করতে পারছিনা। ১হাজার মিটার ড্রেনের মধ্যে আমরা ৯শ মিটার কাজ সম্পন্ন করতে পেরেছি। বাকি রয়েছে ১০০মিটার। এ নিয়ে আমি উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে কথা বলেছি সে বলেছে জায়গা পরিস্কার করার ব্যবস্থা করবে। গত বছর ২১শে মার্চ এই ড্রেনের কাজ শুরু হয়। ৩মাস কাজ করার পরে ঠিকমত আর কাজ করতে পারিনি।
জায়গা খালি করে দিলে ২সপ্তাহের মধ্যে বাকি কাজ সমাপ্ত করতে পারবো। উপজেলা প্রকৌশলী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ড্রেনের কাজ ৯০শতাংশ শেষ হয়ে গেছে। ড্রেনের কিছু জায়গা স্থানীয়দের দখলে রয়েছে যার কারনে কাজ শেষ করতে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসন এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহোদয় সহ সরজমিনে গিয়ে ম্যাপ দেখে সমাধান করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আমাদের এন্ড্রয়েড এপস আপনার মোবাইলে ইন্সটল করুন।

Developer By Zorex Zira