1. admin@dwiptv.com : dwiptv.com :
  2. dwiptvnews2121@gmail.com : sub editor : sub editor
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২০ অপরাহ্ন

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় প্রকল্প অনুমোদন

ডেস্ক নিউজ :
  • আপডেট: বুধবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২২
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় প্রকল্প অনুমোদন
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় প্রকল্প অনুমোদন

ম্যাচিং ফান্ডের শর্ত ছাড়াই চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) ইতিহাসে সবচেয়ে বড় প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ‘চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের আওতায় এয়ারপোর্ট রোডসহ বিভিন্ন সড়কসমূহ উন্নয়ন ও গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোগত উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছে দুই হাজার ৪৯০ কোটি ৯৬ লাখ ৬৯ হাজার টাকা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে এনইসিতে একনেক বৈঠক হয়।

 

প্রকল্পের উন্নয়ন প্রস্তাবনায় (ডিপিপি) এক হাজার ৯৯২ কোটি ৭৭ লাখ ৩৫ হাজার টাকা সরকারি অর্থায়নে, বাকি ৪৯৮ কোটি ১৯ লাখ ৩৪ হাজার টাকা ম্যাচিং ফান্ড হিসেবে চসিকের অর্থায়ন করার প্রস্তাবনা ছিল। তবে একনেক সভায় উপস্থিত সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী আর্থিক সক্ষমতা না থাকায় ম্যাচিং ফান্ডের অর্থের যোগান দেয়া সম্ভব হবে না বলে জানান।

 

তিনি প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন, প্রকল্পের সম্পূর্ণ অর্থ জিওবি ফান্ডে করে দেয়ার জন্য। মেয়রের অনুরোধের প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী চসিককে জিরো ম্যাচিং ফান্ড করে দেন, যা সিটি মেয়রকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বলে মন্তব্য করেন অনেকে।

 

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিটি মেয়রের প্রশংসাও করেছেন। চট্টগ্রামের মেয়রের মধ্যে সততা ও আন্তরিকতা আছে বলে মন্তব্য করেন। এছাড়া মেয়র চট্টগ্রামের পরিবর্তন আনতে পারবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

 

জানতে চাইলে সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী আজাদীকে বলেন, ম্যাচিং ফান্ড মাফ করার জন্য নেত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছি। তিনি আমার অনুরোধ রেখেছেন। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।
তিনি বলেন, সভায় সিটি কর্পোরেশনের কি কি সমস্যা আছে সেগুলোও তুলে ধরেছি। যেমন সাড়ে ১১শ কোটি টাকার মতো দেনা আছে কর্পোরেশনের। ফলে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে। তারপরও রাজস্ব আদায় করে গত ১০ মাস মোটামুটি উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছি। এর মধ্যে ম্যাচিং ফান্ডের টাকা কীভাবে পরিশোধ করব? তাই প্রকল্পের সম্পূর্ণ অর্থ জিওবি ফান্ড থেকে করে দেয়ার অনুরোধ করেছিলাম।

 

প্রকল্পে যা আছে : অনুমোদিত প্রকল্পে মেয়াদ ধরা হয়েছে ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৪ সালের জুন মাস পর্যন্ত। প্রকল্পের আওতায় বিমানবন্দর সড়ককে চার লেনে উন্নীত করার পাশাপাশি ৬০০ মিটার ওভারপাস নির্মাণ করা হবে। এছাড়া নগরের ৭৬৯ কিলোমিটার রাস্তার উন্নয়ন, ১৫২০ মিটার করে ৩৮টি ফুট ওভারব্রিজ, ২২৪ মিটার করে ১৪টি ব্রিজ, ৮৭ মিটার করে ২২টি কালভার্ট নির্মাণ করা হবে।
ডিপিপিতে প্রকল্পর গ্রহণের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলা হয়েছে, প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বিভিন্ন রাস্তা উন্নয়নের মাধ্যমে যানজট নিরসন হবে।

 

নগরবাসীর জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি পাবে। ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণের মাধ্যমে পথচারীর নিরাপদে রাস্তা পারাপারের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি পাবে। তাছাড়া শহরের প্রায় এক কোটি জনগণ প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে উপকৃত হবে। এই বিশাল জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের জন্য প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

আমাদের এন্ড্রয়েড এপস আপনার মোবাইলে ইন্সটল করুন।

Developer By Zorex Zira